সংবাদমাধ্যমের খবরের জেরে মুখ্যমন্ত্রীর ভাইয়ের স্নেহধন্য সমাজসেবীর প্রচেষ্টায় এবং আইসি সঞ্জয় দাস এর নির্দেশে সাহায্য পেল বৃদ্ধা




মালদা ,

 মালদা জেলার হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নং ব্লকের মহেন্দ্রপুর জিপির ভবানীপুরের বাসিন্দা সাবেরা বেওয়া, অসহায় দুস্থ এই বৃদ্ধার দুর্দশার খবর কিছুদিন আগেই তুলে ধরা হয় সংবাদমাধ্যমে, আর সেই খবরের জেরে এবার এক সমাজসেবীর প্রচেষ্টায় প্রশাসনের কাছ থেকে সাহায্য পেলেন ওই বৃদ্ধা, জানা গেছে তন্ময় দত্ত নামে ওই সমাজসেবী আবার মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির ভাইয়ের খুব কাছের লোক | 
প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার লিস্টে নাম থাকা সত্ত্বেও আধার কার্ড না থাকায় ঘরের টাকা পাননি ওই বৃদ্ধা, বসবাসের এক মাত্র ঘর বর্ষায় ভেঙে গেছে, রান্নাঘরে বসবাস করতে হয়, না আছে পানীয় জলের ব্যবস্থা না আছে শৌচাগার, চরম দুর্দশায় দিন কাটছিলো ওই বিধবা বৃদ্ধার, স্বামী প্রায় কুড়ি বছর আগে অসুখে মারা যায়, রেখে যায় চার কন্যাসন্তানকে, পুত্রহীন সংসারে হাল ধরার ছিল না কেও, তখন থেকেই দারিদ্রত্যার অন্ধকার গ্রাস করে এই পরিবারটিকে, প্রতিবেশীদের সাহায্যে চার কন্যাসন্তানের বিয়ে দেওয়া হয় কিন্তু অসহায় অসুস্থ মা কে দেখভালের মায়ের কাছেই থেকে যায় ছোট মেয়ে লিলিফা খাতুন, তার ও আবার দুই ছেলে, এক মেয়ে, জমিতে ধান কেটে,অন্যের বাড়িতে কাজ করে খাওয়ার তুলে দেন মায়ের মুখে | কিন্তু লকডাউনে কাজও মিলছে না সঠিক ভাবে, ফলে অর্ধাহারে , অনাহারে দিন কাটাতে হচ্ছে তাদের | 

এই পরিবারটির দুর্দশার চিত্র কিছুদিন আগেই তুলে ধরে সংবাদমাধ্যম, এই খবর দেখতে পান মুখ্যমন্ত্রীর ভাইয়ের স্নেহভাজন বিশিষ্ট সমাজসেবী তন্ময় দত্ত, অসহায় এই বৃদ্ধার দুরবস্থা দেখে ব্যথিত হয় সহৃদয় এই সমাজসেবীর মন, সাথে সাথে তিনি মালদা জেলা এবং হরিশ্চন্দ্রপুর ব্লক প্রশাসনের কাছে অনুরোধ করেন যাতে ওই বৃদ্ধাকে সাহায্য করা হয়, তারপরেই এই দিন হরিশ্চন্দ্রপুর থানার আইসি সঞ্জয় কুমার দাসের নির্দেশে হরিশ্চন্দ্রপুর পুলিশের পক্ষ থেকে সাবেরা বেওয়াকে সাহায্য করা হয় | চাল, ডাল  সহ বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী তুলে দেওয়া হয় | আস্বাস দেওয়া হয় আধার কার্ড করে দেওয়া হবে দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে | যাতে তিনি ঘরের টাকা পেয়ে যান | আর প্রশাসনের সাহায্যে পেয়ে হাসি ফুটেছে ওই অসহায় পরিবারটির মুখে | 




সাবেরা বেওয়ার মেয়ে লিলিফা খাতুন বলেন, " হরিশ্চন্দ্রপুর পুলিশ এসে খাদ্যসামগ্রী দিয়ে আমাদের সাহায্য করে গেল, ঘরের কথাও বলেছে, আমরা খুব খুশি | " 

হরিশ্চন্দ্রপুর থানার এসআই অতুল কুমার মিশ্র বলেন, " জেলা প্রশাসন এবং হরিশ্চন্দ্রপুর থানার আইসির নির্দেশে আমরা অসহায় এই বৃদ্ধার হাতে সামান্য কিছু খাদ্যসামগ্রী তুলে দিলাম, বিডিওর পক্ষ থেকে বলা হয়েছে দ্রুত আধার কার্ড করে দেওয়া হবে, তার পরেই  আবাস যোজনার প্রকল্পের ঘর পেয়ে যাবেন বলে জানান "

আর যে সমাজসেবীর প্রচেষ্টায় সাহায্য পেলেন এই বৃদ্ধা সেই বিশিষ্ট সমাজসেবী তন্ময় দত্ত জানালেন, " বিভিন্ন মিডিয়ার মাধ্যমে সাবেরা বেওয়া নামে ওই বৃদ্ধা  মহিলার অসহায়তার কথা জানতে পারি | আমার হৃদয় বিচলিত হয়ে যায়, মালদা জেলা এবং হরিশ্চন্দ্রপুরের প্রশাসনকে অনুরোধ করি যাতে ওনাকে সাহায্য করা হয় | প্রশাসন তৎপরতার সাথে ওই পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে, তাই প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি, সাথে সংবাদমাধ্যমকেও অসংখ্য ধন্যবাদ প্রতিবেদনটি তুলে ধরার জন্য | "

0/Post a Comment/Comments

AB Banga News-এ খবর বা বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য যোগাযোগ করুনঃ 9831738670 / 7003693038, অথবা E-mail করুনঃ banganews41@gmail.com