শিল্পীদের পাশে শিল্পীবৃন্দ,




শিল্পীদের পাশে শিল্পীবৃন্দ
মধ্যমগ্রাম:শিল্পীবৃন্দ। উত্তর ২৪পরগনা জেলার নিউ বারাকপুর মধ্যমগ্রামের সৃজনশীল সাংস্কৃতিক সংস্হা। সদস্য সংখ্যা প্রায় শতাধিক। নামিদামি সংগীতশিল্পীর পাশাপাশি কেউ বা বাদ্যযন্ত্রবাদক আবার কেউ বাচিকশিল্পী বা নাট্যজগতের মানুষ রয়েছেন।করোনা অতিমারীর দীর্ঘ লকডাউনে কঠিন পরিস্হিতির মুখে এইসব শিল্পীদের জীবন সংগ্রামে বেঁচে থাকা ভীষন কষ্টদায়ক।বেশিরভাগ সদস্য পেশাগত ভাবে কেউ গান শেখান আবার কেউ তবলা বা আবৃত্তির প্রশিক্ষন দেন। গানের টিউশন বন্ধ। না আছে কোন অনুষ্ঠান। করোনা মহামারীর আবহে এইসব অসহায় শিল্পী ও স্হানীয় গরিব মানুষদের পাশে দাড়িয়ে স্বাস্হ্যবিধি মেনে দুরত্ব বজায় রেখে স্যানিটাইজ করে সাধ্যমতো খাদ্যসামগ্রী তুলে দিল শিল্পীবৃন্দ। শনিবার সকালে  মধ্যমগ্রাম সুভাষপল্লী  স্টেশন রোডে সংস্হার কার্যালয়ে দুস্হ সংগীত শিল্পী,বাদ্যযন্ত্র বাদক(তবলা,বাঁশি,গীটার,কীবোর্ড,ঢোল,অক্টোপ্যাড)বাচিকশিল্পী ও নাট্যকর্মীদের হাতে প্রায় ১৮ রকমের নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী তুলে দেওয়া হয় ৭৪তম স্বাধীনতা দিবসের পুর্ণলগ্নে। নজির দৃষ্টান্ত স্হাপন করলো শিল্পীবৃন্দ।সদস্যদের আন্তরিকতা ও মানবিকতার প্রশংসনীয় উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছেন দাতারা।সংস্হার সম্পাদক তাপস কুমার দাস জানান দীর্ঘ ১৬বছর ধরে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করে চলেছি। ইতিমধ্যে আয়লা বিধ্বস্ত মানুষদের সম্প্রতি আমফান ঝড়ে এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছে শিল্পীবৃন্দ। অসহায় বৃদ্ধকে পেসমেকার দান করা হয়েছে। মহালয়ায় বস্ত্রদান ও কৃতি পড়ুয়াদের বই ও শিক্ষন সামগ্রীও দেওয়া হয়েছে। আজ ৭৪তম স্বাধীনতা দিবসের পূর্ণলগ্নে অসহায় শিল্পী ও গরিব মানুষদের মোট ৬১জনকে সাধ্যমতো নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী তুলে দেওয়া হল।করোনা আবহে কঠিন পরিস্হিতিতে এইসব নামিদামি শিল্পীরা খুব কষ্টের মধ্যে দিয়ে দিন যাপন করছেন তাদের পাশে দাড়িয়ে শিল্পীবৃন্দের এই ক্ষুদ্র মানবিক প্রয়াস।

0/Post a Comment/Comments