অনলাইনে কবি প্রনাম,রাজীবপুর অগ্ৰনী পাঠাগারের উদ্যোগে শ্যামপুর




বিশেষ প্রতিবেদন,




মহামারীর মধ্যে বিকল্প ভাবনা নিয়ে এগিয়ে এল গ্রন্থাগার। গ্রন্থাগারিক শাশ্বত পাড়ুই এর মস্তিষ্কপ্রসূত ভাবনাতে রাজ্যের মধ্যে এই প্রথম কোনো গ্রন্থাগারে ভার্চুয়াল কবি প্রণাম অনুষ্ঠান হল। করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। হৃদয়ে রয়েছেন রবি। 



তার তিরোধান দিবসের অনুষ্ঠান কি করে বন্ধ রাখা যায়! তাই ভার্চুয়াল কবি প্রণাম অনুষ্ঠান হল করলো শ্যামপুরের রাজীবপুর অগ্রণী পাঠাগার। এই ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে যোগ দিতে পেরে খুশি শিল্পী থেকে সাধারণ মানুষ। সকলেই স্বাগত জানিয়েছেন এমন ভাবনাকে।্্



তুমি রবে নীরবে- এই অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে শুক্রবার রাজীবপুর অগ্রণী পাঠাগারের ফেসবুক প্রোফাইলে সারাদিন চোখ রাখলেন বই প্রেমী ও সংস্কৃতিপ্রেমী মানুষ। শুক্রবার বাইশে শ্রাবণ। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৯ তম তিরোধান দিবস। প্রতিবছরই কবি প্রণাম অনুষ্ঠান করে রাজীবপুর অগ্রণী পাঠাগার। কিন্তু এই করোনা পরিস্থিতিতে তা সম্ভব হচ্ছে না।



 এটা ভেবে মন খারাপ হয়ে গিয়েছিল অনেকেই।  ভার্চুয়াল কবি প্রণাম অনুষ্ঠান করার জন্য উদ্যোগ নেযন গ্রন্থাগারিক শাশ্বত পাড়ুই। তিনি শিল্পীদের নিয়ে একটি হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ করেন। সেই গ্রুপে তিনি শিল্পীদেরকে তাদের বাড়িতে থেকেই নানা অনুষ্ঠান পরিবেশন করতে বলেন। 



শিল্পীদের মধ্যে বাচিকশিল্পী, নৃত্যশিল্পী ও সংগীতশিল্পীরা তাদের নাচ-গান-আবৃত্তি পরিবেশন করেন। সেগুলো তারা ওই হোয়াটসঅ্যাপে পাঠান শাশ্বতবাবুকে। রাজীবপুর অগ্রণী পাঠাগারে শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে গ্রন্থাগারের নিজস্ব ফেসবুক প্রোফাইলে তা পোস্ট করেন গ্রন্থাগারিক । সকলে মিলে এই অনুষ্ঠান উপভোগ করেন। শুক্রবার সারাদিনব্যাপী অভিনব ভাবনায় ভার্চুয়াল কবি প্রণাম অনুষ্ঠান উদযাপন করল রাজীবপুর অগ্রণী পাঠাগার।



সংগীতশিল্পী সঙ্গীতা গিরি, দেওয়ান আলী শেখ, তুহিন পাত্র, বাচিক শল্পী জয়িতা ব্যানার্জী, শাওনী ভক্ত, নৃত্যশিল্পী পায়েল মণ্ডল জানিয়েছেন অভিনব উদ্যোগ। 

গ্রন্থাগারের সদস্য আশিস মণ্ডল জানালেন, ‘এভাবে যে ভার্চুয়াল কবি প্রণাম অনুষ্ঠান করা যায় সেটা আমরা আগে ভাবি নি।’ শিশু বিভাগের সদস্যা দিশা মন্ডলও ভালো লেগেছে বলে জানিয়েছে। গ্রন্থাগারিক শাশ্বত পাড়ুই বলেন, মহামারী পরিস্থিতিতে আমরা এই অনুষ্ঠান করতে পারবো কিনা ভেবে মন খারাপ করেছিল পাঠকরা।

 তারপর ভার্চুয়াল কবি প্রণাম অনুষ্ঠান করার পরিকল্পনা করি। সেটা যে সত্যিই এত ভালোভাবে আমরা উদযাপন করতে পারব তা ভাবিনি। অনুষ্ঠান বেশ ভালো হয়েছে। সকলেই এই অনুষ্ঠান উপভোগ করেছেন। তিনি বলেন, বই ও সংস্কৃতি আমাদের মনের শক্তি। 

তাকে বাদ দিয়ে এই মহামারী পরিস্থিতিতে মানসিক শক্তি পাওয়া যাবে না। তাই আমাদের এভাবেই ভাবতে হবে। সকলের স্বাস্থ্যের সুরক্ষার জন্য একদিকে স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। অন্যদিকে ভার্চুয়াল মাধ্যমে মানসিক শক্তি অটুট রাখতে আমাদের চেষ্টা জারি রাখতে হবে।

0/Post a Comment/Comments

Previous Post Next Post
Contact for advertising : 9831738670