বাংলা গ্রামীণ সম্পদ কর্মীদের পক্ষ থেকে বিডিওর কাছে স্মারকলিপি জমা


 নিজস্ব সংবাদদাতা,হাওড়া: 

 একশো শতাংশ সামাজিক নিরীক্ষার কাজে নিযুক্ত করা হোক সহ ছয় দফা দাবির ভিত্তিতে শুক্রবার বাগনান-১ ব্লকের বিডিওর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করল সারা বাংলা গ্রামীণ সম্পদ কর্মী সংগঠন। তাঁদের অন্যান্য দাবির মধ্যে রয়েছে সরকারি কর্মীদের সমমর্যাদা প্রধান, স্পর্শকাতর মরণব্যাধি বা অতিমারীতে কাজ করার সময় তাঁদের উপযুক্ত স্বাস্থ্য সুরক্ষা প্রদান, কর্ম নিশ্চয়তা প্রদান ও স্থায়ীকরণ। স্বাস্থ্য সাথী ও জীবন বীমা চালু করা ইত্যাদি। বিডিও সত্যজিৎ বিশ্বাস তাঁদের স্মারকলিপি গ্রহণ করে তাঁদের দাবি গুলি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পৌঁছে দেওয়ার আশ্বাস দেন। সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয় ২০১৫-১৬ সালে সর্বোচ্চ প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে সম্পূর্ণ পরীক্ষা পদ্ধতি মেনে গ্রামীণ সম্পদ কর্মী হিসাবে সামাজিক নিরীক্ষার কাজে তাঁদেরকে নিযুক্ত করা হয়। তাঁরা পশ্চিমবঙ্গ পঞ্চায়েত দপ্তরের অধীন সোশ্যাল অডিট দপ্তরের সকল সম্পদ কর্মীরা রাজ্যের প্রতিটি ব্লকে নিজেদের কাজ দায়িত্বের সঙ্গে পালন করে থাকেন। তাঁদেরকে বছরে ২৪০ দিন পতঙ্গবাহিত রোগ নির্ণয় করার মতো দায়িত্ব পালনের কাজে নিযুক্ত। তাঁরা সেই কাজ পালন করলেও দিনের শেষে হাতে মাত্র ১৭৫ টাকা পারিশ্রমিক পান। মাসে মাত্র ২০ দিন এই কাজ করার সুযোগ পাওয়া যায়। অর্থাৎ সারা মাসে তাঁরা মাত্র ৩,৫০০ টাকা সাম্মানিক হিসাবে পান। কাজের সময় বাড়ি পরিদর্শন করতে গিয়ে অসুস্থ হলে অথবা কোনও কর্মীর মৃত্যু হলে সেই কর্মীর পরিবার চরম অর্থ সংকটের মধ্যে পড়ে। গ্রামীণ সম্পদ কর্মীরা নিজেদের নির্দিষ্ট কাজ ছাড়াও জয়বাংলা খাদ্য সাথী, স্বাস্থ্য সাথী, আমফান পরবর্তী সময়ে ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ বন্টন, ভোটার তালিকা নিরীক্ষণ, কৃষক বন্ধু, ফসল বীমা, বাড়ি বাড়ি খাদ্যের কুপন বন্টন ইত্যাদির কাজ করে থাকেন। আর্থিক স্বচ্ছলতার অভাবে এইসব কর্মীদের পরিবার অর্ধাহার বা অনাহারে দিনযাপন করছেন। তাই তাঁরা বাগনান-১ ব্লক ইউনিটের পক্ষ থেকে শুক্রবার বাগনান-১ বিডিও সত্যজিৎ বিশ্বাসের হাতে ছয় দফা দাবি সম্বলিত একটি স্মারকলিপি তুলে দেন।

0/Post a Comment/Comments