অসুস্থ ভিখারিকে হাসপাতালে ভর্তি করল বাগনান থানার পুলিশ


রুপম দাস,হাওড়া(বাগনান): 

 বিস্তর নাটকীয় অধ্যায় পেরিয়ে অবশেষে প্রশাসনিক উদ্যোগে দীর্ঘ ৪-৫ ঘন্টা বিনা চিকিৎসায় রাস্তায় পড়ে থাকা এক মুমূর্ষু ভিখারিকে হাসপাতালে ভর্তি করা সম্ভব হল। কিন্তু এই ঘটনাই আবার অনেক প্রশ্নের জন্ম দিয়ে গেল। ঘটনার সূত্রপাত শনিবার বিকেলে। বাগনান রেল স্টেশনের আশপাশে সারাদিন ভিক্ষা করার পর অত্যন্ত অসুস্থ হয়ে পড়েন পঞ্চাশোর্ধ এক ভিখারি। তিনি স্টেশনের বাইরের চাতালে শুয়ে পড়েন। তাঁর শরীর থেকে অবিরাম রক্তক্ষরণ হতে থাকে। সম্ভবত পায়ু থেকেই এর রক্তক্ষরণ বলে মনে করা হচ্ছে। অসম্ভব যন্ত্রণায় ভিখারিটি কাতরাতে থাকলেও করোনা অতিমারীর আতঙ্কে এলাকার মানুষ তাঁর কাছে যেতেও ভয় পাচ্ছিলেন। তাঁরা রেল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানলে রেল কর্তৃপক্ষ বাগনান থানা ও হাসপাতালকে খবর দেন বলে জানা গিয়েছে। এই খবর পাওয়া মাত্রই ঘটনাস্থলে পৌঁছয় বাগনান থানার পুলিশ। সাব-ইন্সপেক্টর কৌশিক পাঁজা ওই ভিখারিকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য অ্যাম্বুলেন্স খুঁজতে থাকেন। এদিকে অসুস্থ ওই ভিখারির চিকিৎসায় বিলম্ব হচ্ছে, কেন সরকারি হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স বা স্বাস্থ্যকর্মীরা ঘটনাস্থলে এলেন না এই অভিযোগ তুলে এলাকার মানুষজন ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন। কৌশিকবাবু ক্ষিপ্ত জনতাকে বুঝিয়ে তাঁদের ক্ষোভ প্রশমিত করার চেষ্টা করতে থাকেন। ঘটনার কথা জানা সত্ত্বেও বাগনান গ্রামীণ হাসপাতাল থেকে কেন অ্যাম্বুলেন্স বা স্বাস্থ্য কর্মীদের ঘটনাস্থলে পাঠানো হল না এই প্রশ্ন করা হলে বাগনান-১ ব্লক স্বাস্থ্য আধিকারিক ডাঃ পলাশ মল্লিক তাঁর ক্ষমতার কথা জানান। তিনি বলেন হাসপাতালে যে দুটি অ্যাম্বুলেন্স আছে সেগুলি প্রসূতি মায়েদের ব্যবহারের জন্য। এছাড়া তাঁর হাতে অন্য অ্যাম্বুলেন্স নেই। স্বাস্থ্যকর্মীদের রাতে বাইরে পাঠানো যায় না। তাই বিষয়টি পুলিশকে দেখতে বলা হয়েছে। এদিকে এই ঘটনার কথা জানতে পেরে আসরে নামেন বাগনান-১ বিডিও সত্যজিৎ বিশ্বাস। তাঁর হস্তক্ষেপে কিছুক্ষণের মধ্যেই হাসপাতাল থেকে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় অ্যাম্বুলেন্স। তবে কোনও স্বাস্থ্যকর্মী না থাকায় ফের সমস্যায় পড়েন কৌশিকবাবু। শেষপর্যন্ত থানার ডোম ও স্থানীয় কয়েকজনকে নিয়ে ওই ভিখারিকে অ্যাম্বুলেন্সে তুলে রাত ন'টা নাগাদ হাসপাতালে পৌঁছান তিনি। বিডিও সত্যজিৎ বিশ্বাস বলেন বাগনান গ্রামীণ হাসপাতালে মাত্র দুটি অ্যাম্বুলেন্স আছে এই তথ্য সঠিক নয়। ওই দুটি অ্যাম্বুলেন্স ছাড়াও ব্লকের তরফ থেকে আরও একটি অ্যাম্বুলেন্স এবং করোনা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য অতিরিক্ত দুটি ম্যাজিক গাড়ি হাসপাতালকে দেওয়া আছে। এলাকার মানুষ প্রশ্ন তুলেছেন করোনা সংক্রান্ত বিষয় মোকাবিলা করার জন্য উপযুক্ত পরিকাঠামো স্বাস্থ্য দপ্তরের থাকা সত্ত্বেও একটি অসুস্থ ভিখারিকে রাস্তা থেকে তুলে আনার জন্য পুলিশকে কেন যেতে হচ্ছে? এটা তো আর আইন-শৃংখলার বিষয় নয়?




0/Post a Comment/Comments

AB Banga News-এ খবর বা বিজ্ঞাপন দেওয়ার জন্য যোগাযোগ করুনঃ 9831738670 / 7003693038, অথবা E-mail করুনঃ banganews41@gmail.com