তৃণমূলের কর্ম্যদক্ষ কে সরাতে অনাস্থা,







বাবাই সূত্রধর,দক্ষিণ দিনাজপুর,২০জুন;




পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূলের  কর্মদক্ষ কে সরাতে তৃণমূলের বেশ কয়েকজন সদস্যরা সিপিএম ও নির্দল পঞ্চায়েত সমিতির সদস্যদের সহযোগিতায় অনাস্থাজ আনলো।দক্ষিণ দিনাজপুরের হরিরামপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মারধর করার পড়ে কেন এই কর্মদক্ষ এর বিরুদ্ধে অনাস্থা আনা হলো তা নিয়েই শুরু হয়েছে গুঞ্জন ।অনাস্থা নিয়ে আসা সিপিএম ও নির্দল পঞ্চায়েত সদস্যদের কথায়,সভাতে পঞ্চায়েত সমিতি কর্মাদক্ষ জাকির হোসেন বেশিরভাগ সময়ে উপস্থিত থাকেন না বলেই শক্তিশালী পক্ষের হয়ে ই সই করা হয়েছে।যদিও তৃণমূলের পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি জানিয়েছেন,দলের জেলা সভাপতি ও কার্যকরী সভাপতিকে বিষয়টি জানানো হয়েছে।




তারা বলেছেন কোনো অনাস্থা হবে না।হরিরামপুর বিধানসভার কনভেনর অবশ্য জানিয়েছেন,এমন বিষয়টি কখনই মেনে নেওয়া হবে না।দলে জানানো হয়েছে,দল ব্যবস্থা নেবে।বিষয়টি নিয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে দলের তরফে।।
    হরিরামপুর পঞ্চায়েত সমিতি তে মোট ১৮ টি আসন রয়েছে।গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস ১৫টি ,সিপিএম ১টি,নির্দল১টি ও বিজেপি ১টি আসন দখল করে। শাসকদলের তরফে পঞ্চায়েতহ সমিতির সভাপতি করা হয় মধুমিতা রায়কে।সহ সভাপতি করা হয় তরুণ যুবক গোলাম মোস্তাফাকে ।লোকসভা ভোটের আগে পযন্ত পঞ্চায়েত সমিতি সঠিকভাবে চলছিল বলে খবর।শাসক দলের জেলা সভাপতির পরিবর্তনের পর ও হরিরামপুর এলাকা থেকে শুভাশীষ পাল মেন্টর এর পদে বসার পর থেকেই পঞ্চায়েত সমিতির নানা রকমের সমস্যা তৈরি হয় বলে অভিযোগ। কয়েকদিন আগে অভিযোগ ওঠে ,শুভাশীষ পালের নির্দেশেই হরিরামপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মধুমিতা রায়ের বাড়িতে হামলা চালায় দুষ্কৃতী রা ।যে ঘটনা নিয়ে চরম শোরগোল পরে ব্লক জুড়ে ।শাসকদলের তরফে এমন ঘটনা করা হাতে মোকাবেলা করা হয়।শুভাশীষ পালকে দলের কার্যকরী সভাপতির পদ থেকে হাত গোটাতে হয় বলে খবর।ধীরে ধীরে দলেও কোণঠাসা হতে থাকেন শুভাশীষ পাল বলে সূত্রে খবর।
মহকুমা প্রশাসন সূত্রে খবর ,হরিরামপুর পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূলের সদস্য নির্মল চন্দ্র সরকার ,গীতা রানী মাহাতো,সুফল সরেন,প্রমানন্দ নুনিয়া, আর্যান খাতুন, সইদুর রহমান,বাসন্তী দাস,আলিজা টুডু,সিপিএম সদস্য আকবর আলী ও নির্দল সদস্য হসনেয়ারা চৌধুরী মত ১১জন সদস্য ,পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূলের ক্ষুদ্র বিদ্যুৎ ও চিরাচরিত শক্তি স্থায়ী করন পদ থেকে খলিলুর রহমানের অপশরণ চেয়েছেন ।তার হয়ে ১১জন সদস্য জার মধ্যে সিপিএম ও নির্দল সদস্য রয়েছে।
হরিরামপুর পঞ্চায়েত সমিতির সিপিএম এর সদস্য ও নির্দল সদস্য হসনেয়ারা চৌধুরীরা জানিয়েছেন,পঞ্চায়েত সমিতির কর্মদক্ষ জাকির হোসেন বেশিরভাগ সময়ে উপস্থিত থাকেন না বলেই শক্তিশালী পক্ষের হয়ে ই  সই করা হয়েছে।আমরা চায় এলাকাবাসীর জন্য আরো করে উন্নোয়নের কাজ।
তৃণমূলের হরিরামপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মধুমিতা রায় জানিয়েছেন ,বিষয়টি জানার পরেও দলের জেলা সভাপতি ও কার্যকরী সভাপতিকে জানানো হয়েছে।তারা বলেছেন কোনো অনাস্থা হবে না।
হরিরামপুর বিধানসভার কনভেনর হাতেম আলী অবশ্য জানিয়েছেন,এমন বিষয়টি কখনই মেনে নেওয়া হবে না।দলে জানানো হয়েছে,কোনো অনাস্থা হবে না বলে জানানো হয়েছে।বাকিটা দলের জেলা সভাপতি দেখছে,তারাই ব্যবস্থা নেবে।
তৃণমূলের জেলা কার্যকরী সভাপতি গৌতম দাস জানিয়েছেন,বিষয়টি তিনি শুনেছেন।দলের তরফে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
এমন ঘটনায় ব্যাপক শোরগোল পড়েছে হরিরামপুর জুড়ে।

0/Post a Comment/Comments

Previous Post Next Post
Contact for advertising : 9831738670