সংবর্ধনায় ভাসলেন অর্পিতা ঘোষ,




বাবাই সূত্রধর,

তৃণমূলের জেলা সভাপতি তথা রাজ্যসভার সাংসদ অর্পিতাতেই ভরসা, সাংসদ হয়ে জেলায় ফিরতেই দলীয় নেতা-কর্মীরা তাঁকে সংবর্ধনায় ভাসালে।


জেলা সাংসদ পদে ভোটের টিকিটে বিজেপি প্রার্থীর কাছে পরাজিত হলেও তৃণমূল দল আবার তাকে রাজ্যসভার সংসদ করে জেলায় পাঠালেন। দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তে তৃণমূলের জেলা সভাপতি তথা রাজ্যসভার সাংসদ হয়ে অর্পিতা ঘোষ জেলাতে পা দিতেই তাকে বুনিয়াদপুর, গঙ্গারামপুর, রামপুর, পতিরাম সহ বালুরঘাটের বিভিন্ন জায়গায় দলীয় নেতাকর্মীরা সংবর্ধনা দেন।




 সাংসদ অর্পিতা ঘোষ জানালেন, আরো উন্নয়ন করাই হবে তার লক্ষ্য। পাশাপাশি কোরোনা ভাইরাস নিয়ে নেতাকর্মীদের মাধ্যমে জনগণকে সচেতন করার কথা জানান তিনি। চেয়ারম্যান থেকে শুরু করে বিধায়করাও অবশ্য সাংসদদের মাধ্যমে জেলাতে আরো উন্নয়ন হবে বলে তারা আশা প্রকাশ করেন।


               ২০১৩ সালের লোকসভা ভোটে বামেদের প্রার্থী কে ব্যাপক ভোটে পরাজিত করে লোকসভার সাংসদ হয়েছিলেন বর্তমান রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ঘনিষ্ঠ নাট্যকর্মী অর্পিতা ঘোষ। সারা দেশের মধ্যে সাংসদ হিসেবে অর্পিতা ঘোষ তার সাংসদ কোঠার টাকা খরচে তিন নম্বরে ছিলেন। 

যা দেশের অন্যতম তৃণমূল দলের সাংসদ হিসেবে তিনি মনোনীত হন। না না টাল বাহার মধ্যেই বিগত লোকসভা নির্বাচন মুখ্যমন্ত্রী আবারো জেলা তৃণমূলের বালুরঘাট লোকসভা  আসনের প্রার্থী করেন অর্পিতা ঘোষকে। কিন্তু সামান্য ভোটের ব্যবধানে লোকসভা আসনে তিনি বিজেপি প্রার্থী সুকান্ত মজুমদার এর কাছে পরাজিত হন। এর পরেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাকে তৃণমূলের জেলা সভাপতি হিসেবে নির্বাচন করেন।



 সেই সময় থেকেই অর্পিতা ঘোষ জেলাতে দক্ষতার সঙ্গে দল চালাতে থাকেন। এমনকি গত ৪ মার্চ বুনিয়াদপুর এ তৃণমূলের বুথ ভিত্তিক কর্মী সভাতে অর্পিতা তেই ভরসা করেন বলে ভরা দলীয় মিটিংয়ে ঘোষণা করেন।

 এর পরেই মুখ্যমন্ত্রী ফের অর্পিতা ঘোষকে রাজ্যসভার প্রার্থী করেন। নিশ্চিত আসনে জয়লাভও করে রাজ্য সভার সংসদ নির্বাচন হন নাট্যকর্মী অর্পিতা ঘোষ।
এদিন বিকেলে রাজ্যসভার সাংসদ হয় কলকাতা থেকে ট্রেনে করে মালদা স্টেশনের পৌঁছান অর্পিতা ঘোষ। 

সেখান থেকে তিনি গাড়িতে করে প্রথমে বুনিয়াদপুর পৌঁছান। সেখানে তৃণমূল নেতাকর্মীদের তরফে তাকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়। সেখান থেকে বিকেলে এসে পৌঁছান গঙ্গারামপুর বাস স্ট্যান্ড এলাকায়, তাকে গঙ্গারামপুর টাউন ও ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস কমিটির তরফ থেকে সংবর্ধনা দেয়া হয়।

 সেখানে তাকে সংবর্ধনা দেন পৌরসভার চেয়ারম্যান অমলেন্দু ভূষণ সরকার, বিধায়ক গৌতম দাস, জেলা পরিষদের সভাধিপতি লিপিকা রায় ,সহ-সভাধিপতি ললিতা টিক্কা, ভাইস চেয়ারম্যান রাকেশ পন্ডিত, ছাত্র পরিষদের জেলা সভাপতি অতনু রায়, টাউন তৃণমূল কংগ্রেসের কনভেনার অশোক বর্ধন, সরকারি সভাপতি সুকুমার মহন্ত, মহিলা সংগঠন, শিক্ষা সেল, কিসান ক্ষেতমজুর সহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতা তাকে সংবর্ধনা দেন। 

এর পাশাপাশি তপনের রামপুর পতিরাম, বালুরঘাট, বিভিন্ন নেতাকর্মীরা রাজ্যসভার সাংসদ অর্পিতা ঘোষকে সংবর্ধনা দেন।
সংবর্ধনা পাওয়ার পরেই রাজ্যসভার সাংসদ অর্পিতা ঘোষ জানিয়েছে, আরো উন্নয়ন করাই হবে তার লক্ষ। পাশাপাশি কোরোনা নিয়ে নেতা ও কর্মীদের মাধ্যমে মানুষজনকে সচেতন করার কথা জানান তিনি।


গঙ্গারামপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান অমলেন্দু ভূষণ সরকার ও গঙ্গারামপুরের বিধায়ক গৌতম দাস জানিয়েছেন, রাজ্যসভার সংসদের মাধ্যমে জেলাতে আরো উন্নয়ন হবে। দিদি আমাদের জন্য আরো একটি উন্নয়নের উপহার দিলেন তার জন্য তাকে ধন্যবাদ জানাই।

0/Post a Comment/Comments

Previous Post Next Post
Contact for advertising : 9831738670