ভারতীয় বিজ্ঞান কংগ্রেস অ্যাসোসিয়েশনের দুটি বিভাগে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন অধ্যাপক গৌতম পাল,

ফারুক আহমেদ:

    অধ্যাপক গৌতম পাল ২০২০-২০২১ সালের জন্য ভারতীয় বিজ্ঞান কংগ্রেস অ্যাসোসিয়েশনের মেডিকেল সায়েন্সেস এবং ফিজিওলজি বিভাগে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। 




 কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ উপাচার্যের প্রথম দায়িত্ব পান অধ্যাপক গৌতম পাল ২০১৯ সালে। 

বর্তমানে তিনি সহ উপাচার্যের দায়িত্বেই আছেন। ড. গৌতম পাল কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরবিদ্যা বিভাগের বরিষ্ঠ শিক্ষক এবং বিজ্ঞান অনুষদের প্রাক্তন ডিন।

 তিনি একজন অসাধারণ শিক্ষক এবং বিজ্ঞানী। শিক্ষক, বিজ্ঞানী ও লেখক হিসেবে তাঁর খ্যাতি রয়েছে গোটা বিশ্বব্যাপী।  

 দীর্ঘ ৩০ বছর তিনি কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষণ এবং গবেষণার সঙ্গে যুক্ত। 

তাঁর অধীনে বহু স্নাতকোত্তর এবং পিএচ. ডি. স্তরের ছাত্র-ছাত্রীরা গবেষণা করে ভারত এবং বিদেশের কলেজে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে সম্মানজনক পদে আসীন হয়েছেন। 


সেই সঙ্গে সমান্তরালভাবে সাফল্যের সঙ্গে চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁর গবেষণার কাজ ও লেখালিখি। 

তাঁর স্নেহধন্য অনেক ছাত্র এবং গবেষক সারা ভারতবর্ষের বিভিন্ন জায়গায় আজ সাফল্যের সঙ্গে কৃতিত্বের ছাপ রাখছেন প্রতিনিয়ত। 

তাঁর প্রকাশিত গবেষণা প্রবন্ধের সংখ্যা প্রায় ১৭০ টি এবং তিনি বিজ্ঞানের উপর বই লিখেছেন ৯ টি। পরিবেশ বিজ্ঞানের পাঠক্রম তৈরি এবং পরিবেশ বিজ্ঞানের গবেষণায় সমগ্র ভারতবর্ষের নিরিখে তাঁর অবদান চিরস্মরনীয় হয়ে থাকবে।




 তিনি বিজ্ঞান চর্চায় গ্রন্থ রচনা করে ভারতবর্ষের পাশাপাশি গোটা পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে সুখ্যাতিপ্রাপ্ত ও জনপ্রিয় হয়েছেন।

 পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিজ্ঞানের উপর বাংলা ভাষায় রচিত তাঁর এক হাজার পৃষ্ঠার উপরের বইটি দীর্ঘ কুড়ি বছর যাবত্‍ বহু পাঠক, ছাত্র-ছাত্রী গবেষকদের সুখপাঠ্য হিসাবে বিবেচিত রয়েছে। আর্সেনিকের উপর তিনি গভীর অধ্যয়ন ও গবেষণা করেছেন। 

আর্সেনিক দূষণ নিয়ে তিনি যুগান্তকারী গবেষণা করেছেন। আর্সেনিক দূষণের উপর গবেষণা করে তিনি ডিএসসি ডিগ্রি লাভ করেন। 

সারা ভারতে তিনিই একমাত্র কর্মরত ফিজিওলজির অধ্যাপক যাঁর পিএইচডি ও ডিএসসি ডিগ্রি রয়েছে। 

এছাড়াও বিজ্ঞান বিষয়ে বিভিন্ন প্রাদেশিক এবং দৈনিক খবরের কাগজ, ম্যাগাজিন এবং পত্র-পত্রিকায় তাঁর প্রকাশিত লেখা প্রবন্ধাবলী ভীষণভাবে জনপ্রিয় হয়েছে এবং গবেষণালব্ধ প্রবন্ধগুলি বিশেষ সাড়াও ফেলেছে পাঠকের দরবারে। 

 বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ক্ষেত্রে ড. পালের বিশেষ অবদানের জন্য ভারতীয় বিজ্ঞান কংগ্রেস অধ্যাপক পালকে বিশেষ সম্মানে সম্মানিত করেছে ইতিপূর্বে।

 ইম্ফলে মণিপুর কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১০৫ তম বিজ্ঞান অধিবেশনে মার্চ ১৮ থেকে ২২, ২০১৮ সালে "রাজকৃষ্টো দত্ত মেমোরিয়াল অ‍্যাওয়ার্ড ২০১৭-২০১৮" দিয়ে তাঁকে সম্মানিত করা হয় ভারত সরকারের পক্ষ থেকে।

 কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে এটি একটি বিরল সম্মান এবং সম্মান রাজ্যেরও। 

এই অসাধারণ কৃতিত্ব নি:সন্দেহে আপামর বাঙালিকে প্রাণিত করে। পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি ভারতের বিজ্ঞান চর্চার ইতিহাসে বাংলার উজ্জ্বল মুখ ড. পাল। 

তাঁকে এই বিশেষ সম্মানে সসম্মানিত করার জন্য বাঙালি হিসেবে আমরাও গর্বিত। ড. গৌতম পাল এর আগেও দেশে ও বিদেশে বহু সম্মানে ভূষিত হয়েছেন। 

তিনি তাঁর মূল্যবান কাজের জন্য বিভিন্ন সম্মানে সম্মানিত হচ্ছেন প্রতিনিয়ত। আর সেই সঙ্গে কল্যাণী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হিসেবে কাজে যুক্ত আছেন বলেই বিশ্ববিদ্যালয়ের নামও ছড়িয়ে পড়ছে গোটা বিশ্বে।

 বুধবার অধ্যাপক গৌতম পাল ২০২০-২০২১ সালের জন্য ভারতীয় বিজ্ঞান কংগ্রেস অ্যাসোসিয়েশনের মেডিকেল সায়েন্সেস এবং ফিজিওলজি বিভাগে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন।

0/Post a Comment/Comments