মালদায় এসে মডেল মাদ্রাসাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে উপদেশ দেন রাজ্যের মন্ত্রী,

মালদা, ১১ জানুয়ারি,




-‘‌বিদ্যালয়ের একজন প্রধান শিক্ষক যদি সেই বিদ্যালয়কে সামনের দিকে এদিয়ে নিয়ে যেতে চান, তাহলে কেউ রুখতে পারবেন না। 

কিন্তু যদি তিনি বিদ্যালয়কে মাটিতে মিশিয়ে দিতে চান, তাহলেও তাঁকে কেউ আটকাতে পারবে না।’‌ 

মালদায় এসে মডেল মাদ্রাসাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে উপদেশ দেন রাজ্যের শ্রম দপ্তরের মন্ত্রী গোলাম রাব্বানি। 

মডেল মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক তৌসিফ বিশ্বাসকে তাঁর বার্তা,‘‌প্রধান শিক্ষককে আমি অনুরোধ করছি, বিদ্যালয়ের পড়াশোনার পরিস্থিতি এই মুহুর্তে ভাল জায়গায় নেই। 

এটা ঠিক করতে হবে সকলকে নিয়ে।’‌ অন্যান্য শিক্ষকের প্রতি মন্ত্রীর উপদেশ,‘‌আজ মালদা মডেল মাদ্রাসা খুব ভাল জায়গায় নেই। আপনারা ঠিক মতো পড়ান। 




স্কুল সামনের দিকে এগোতে থাকলে জেলার বিশিষ্টদের ছেলে-‌মেয়েরা এই স্কুলে পড়তে আসবে। 

আমার বিশ্বাস কালকে এই স্কুলের দিন আসবেই।’‌ শনিবার শ্রম মন্ত্রী এসেছিলেন মডেল মাদ্রাসার শতবর্ষ উদযাপন অনুষ্ঠানের উদ্বোধনে।

 ছিলেন রাজ্য ওয়াকফ বোর্ডের চেয়ারম্যান আব্দুল গণি, কলকাতা ভিক্টোরিয়া কলেজের প্রাক্তন অধ্যাপিকা মীরাতুন নাহার, বিধয়াক নীহার ঘোষ, প্রাক্তন মন্ত্রী কৃষ্ণেন্দু চৌধুরি প্রমুখ। 

জানা গেছে, গত ২০১৪ সালে মালদা মডেল মাদ্রাসার শতবর্ষ পূরণ হয়। 

স্কুলের শতবর্ষের সূচনা করেন তখন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রয়াত সন্তোষ চক্রবর্তী। তার ৬ বছর পর শতবর্ষ উদযাপন করা হল বলে জানান প্রধান শিক্ষক তৌসিফ বিশ্বাস।

 তিনি বলেন,‘‌বিভিন্ন প্রতিকূলতার কারণে আমরা ২০১৪ সালে শতবর্ষ উদযাপন করতে পারি নি। সবাইকে একত্রিত করে শতবর্ষ উদযাপন করতে একটু দেরি হয়ে গেল। 

সকলের আন্তরিক প্রচেষ্টার ফলেই এতবড় অনুষ্ঠান করার উদ্যোগ নিয়েছি আমরা।’‌ এদিন শ্রম দপ্তরের মন্ত্রী গোলাম রাব্বানি এই বিদ্যালয়ের প্রসঙ্গ টেনে আবার বলেন,‘‌আমরা রাজ্যে ১২ মাদ্রাসায় ইংরেজি মাধ্যমের স্কুল চালু করেছি। তার মধ্যে মালদা মডেল মাদ্রাসা অন্যতম। 

এই বিদ্যালয়ের হাল ফেরাতেই এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখনও তা সম্ভব হয় নি। 

পড়ুয়া মাত্র ৫০৯ জন। এটা খুব খারাপ লাগার জায়গা। স্কুলকে যদি ভাল না করা যায়, তাহলে সব শেষ হয়ে যাবে। খুব কষ্ট পাবো আমরা।’‌ 

পাশাপাশি দেশ জুড়ে এনআরসি, ক্যা নিয়ে অস্থিরাবস্থা তৈরি হয়েছে, কেন্দ্রের বিজেপি-‌কে আক্রমণ করে মন্ত্রী বলেন,‘‌যারা এখন দেশ চালাচ্ছে, তাদের শিক্ষা নিয়ে কোনও ভাবনা নেই। 

তারা এখন এনআরসি, সিএএ নিয়ে ব্যস্ত। দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা রসাতলে যাক, সেটাই চায় ওরা।’

0/Post a Comment/Comments