হাওড়ার আমতা এক ব্লকে বুলবুল ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে, রাজ্য সরকার,,,,,,

নিজস্ব প্রতিবেদক ,, 




রাজ্যের কয়েকটি জেলায় সাম্প্রতিক ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় বুলবুল র দাপটে অতিষ্ঠ জনজীবন বিপর্যস্ত কৃষি ফসল ও নিম্ন মানের ঘর বাড়ি। 

হাওড়া জেলার আমতা থানার অন্তর্গত আমতা এক ব্লকের অন্তর্গত তেরটি গ্রাম পঞ্চায়েতে এখন কেবলই কৃষিজ পণ্যের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে এমনি কৃষক দের কাছ থেকে আবেদন গ্রহণ শিবির শুরু হতে চলেছে নয় ডিসেম্বর থেকে দশই জানুয়ারি পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে তেরটি গ্রাম পঞ্চায়েতের আলাদা আলাদা দিন ধার্য করা হয়েছে এরপরও যদি কোন কৃষক আবেদন করতে বাদ থেকে যায় বা তথ্য যোগাড়ে দেরি হয় তাহলে তারা তাদের নিজেদের সকল প্রকার তথ্য ঠিক ঠাক করে নিয়ে আট থেকে দশ জানুয়ারি,বেলা এগারোটা থেকে চার টার মধ্যে, 


আবেদন করতে পারবেন আমতা কৃষি ভবনে,বলে অফিস সূত্রে জানা গেছে।

 আবেদন করা যাবে অফিস টাইমে এগারোটা থেকে চার টা পর্যন্ত, সিরাজবাটি, নয় ,দশ ডিসেম্বর আমতা কৃষি ভবন, আমতা, এগারো, বারো ডিসেম্বর আমতা কৃষি ভবন,উদং এক ও দুই , আমতা কৃষি ভবন তেরো ও চোদ্দ ডিসেম্বর, খড়দহ, ষোল সতেরো ডিসেম্বর আমতা কৃষি ভবন, ছোট মহরা কৃষাণ মাণ্ডিতে খোসালপুর ও আনুলিয়া দুই দিন পর পর আঠারো উন্নিশ ও কুড়ি একুশ ডিসেম্বর,বালিচক , রসপুর, চন্দ্র পুর, ভাণ্ডারগাছা ,

 আমতা কৃষি ভবন পর পর দুই দিন করে তেইশ চব্বিশ, ছাব্বিশ সাতাশ ও একদিন আঠাশ ডিসেম্বর আর ভাণ্ডারগাছা তিরিশ ও একত্রিশ ডিসেম্বর, দুই ও তিন জানুয়ারি হবে বসন্ত পুর গ্রাম পঞ্চায়েতে ,ছয় সাত জানুয়ারি কানপুর গ্রাম পঞ্চায়েতে আর একেবারে শেষ পর্যায়ে আমতা কৃষি ভবনে হবে আট দশ জানুয়ারি অবশিষ্ট জনদের আবেদন এস ডি আর এফ ক্যাম্প বা শিবির।

এ সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানাতে এলাকায় এলাকায় ঘুরে ঘুরে প্রচার করা হচ্ছে ,প্রচার পত্র বিলি করা চলছে পুরোদমে।

নয় ডিসেম্বর থেকে দশ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রায় এক মাস ধরে পর্যায়ক্রমে আমতা এক নম্বর ব্লকের অন্তর্গত তেরটি গ্রাম পঞ্চায়েতে বসবাস কারী বা জমীর মালিক রা আবেদন করতে পারবেন কিন্তু বাড়ি আমতায় জমী অন্য কোন জেলায় অবস্থিত তাঁরা আবেদন করতে পারবেন না প্রচার পত্রে খুঁটি নাটি বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়েছে। 




পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর পরিকল্পনায় ও উদ্যোগে কৃষি দপ্তর কৃষকের মুখে হাসি ফোটাতে কৃষকের সাথে কৃষকের পাশে দাঁড়াতে সবার আগে সর্বশেষ সূচনা ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের আর্থিক সহায়তা প্রদানের জন্য আবেদন পত্র গ্রহণের প্রস্তুতি চলছে পুরোদমে আমতা এক নম্বর ব্লক এলাকা জুড়ে বলে জানিয়েছেন আমাদের প্রতিনিধির মাধ্যমে হাওড়া জিলা পরিষদের কৃষি সেচ সমবায় কর্মাধ্যক্ষ ও বিশিষ্ট আইনজীবী রমেশ চন্দ্র পাল। 

এই শিবির গুলিতে এলাকার সকল প্রকার জনপ্রতিনিধি ও আধিকারিক বর্গ সার্বিক সহযোগিতা করবেন।

 যতো শিঘ্র সম্ভব ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক সরাসরি তার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে খয়রাতির টাকা পাবেন।

0/Post a Comment/Comments