একটি আদর্শ স্কুলের তরফে উচ্চমাধ্যমিকের ভালো রেজাল্ট নিয়ে পাশ করা সমস্ত ছাত্রদের বিদায় বেলায় সমাজের শিক্ষা থেকে শুরু করে বিশিষ্টজনের সম্মান জানানো হলো ,

বাবাই সূত্রধর, 

গঙ্গারামপুর ,9 ডিসেম্বর ,

দক্ষিণ দিনাজপুর ;



একটি আদর্শ স্কুলের তরফে উচ্চমাধ্যমিকের ভালো রেজাল্ট নিয়ে পাশ করা সমস্ত ছাত্রদের বিদায় বেলায় সমাজের শিক্ষা থেকে শুরু করে বিশিষ্টজনের সম্মান জানানো হলো ,সম্মান জানানো হয় দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার সাব-ডিভিশনাল রিপোর্টাস অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক কেউ ,মানপত্র ফুলের তোড়া দিয়ে তাদেরকে সম্মান জানানো হয় ।


করা হয় বিদায়ী ছাত্রদের নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠান ।

এমন অনুষ্ঠানকে সকলের সাধুবাদ জানিয়েছেন । 

২০১৫ সালে গঙ্গারামপুর থানার পান সাগরের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ আব্দুল কিবরিয়া এই আবাসিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি গঙ্গারামপুরের মিশন মোড়ে শুরু করেন ।

বর্তমানে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ২৫০ জনের বেশি ছাত্র পড়াশোনা করে থাকছে ।

গোটা উত্তরবঙ্গের মধ্যে এই আবাসিক স্কুলের নাম রয়েছে অনেক উপরে বলে অভিমত গঙ্গারামপুর বাসির ।

গত বছর শিক্ষাবর্ষে উচ্চ মাধ্যমিকে প্রায় সমস্ত ছাত্র ৯০শতাংশের উপরে নাম্বার পেয়ে সেখান থেকে পাশ করেছে ।

এখন তাদের বিদায় সংবর্ধনা দেওয়ার জন্য একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় স্কুল চত্বরের মধ্যেই ।

প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন তপন রাধাগোবিন্দ মন্দিরের সেবায়েত প্রবোধকুমার ধর সহ একাধিক বিশিষ্টজনেরা ।

সেখানে স্কুলের তরফে সকলকে বরণ করে নেওয়া হয় ।প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত আব্দুল কিবরিয়া গত হবার পরে তার সুযোগ্য দুই পুত্র রাহুল রাজেশ মিলে স্কুলটি আজ পূর্ণাঙ্গরূপে তৈরি করেছেন মা সহ অনেকের সহযোগিতা নিয়ে ।

উচ্চ মাধ্যমিকস্তরে ছাত্র-ছাত্রীদের বিদায় বেলায় একটি অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে সমাজ সংস্কারক ও শিক্ষানুরাগী ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর স্মৃতি সম্মান সমাজের বিশিষ্টজনেরা ও সাংবাদিকদের সংগঠনের সম্পাদক হাতে তুলে দেওয়া হয় ।

 এ প্রসঙ্গে স্কুলের ডিরেক্টর রাহুল সরকার জানিয়েছেন এমন একটি অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে সমাজের শিক্ষানুরাগী থেকে শুরু করে বিশিষ্টজনদের সম্মান জানানো হলো ।

যা প্রতিবছরই এমন অনুষ্ঠান করার চেষ্টা করা হবে । অনুষ্ঠানে হাজির থেকে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা সাবডিভিশনাল রির্পোটাস সম্পাদক শীতল চক্রবর্তী জানিয়েছেন স্কুলের উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ কামনা করি। 

সেই সঙ্গে যারা পড়াশোনা করছে তাদের ভবিষ্যৎ আরো ভালো হোক সেই কামনাই করি।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত থেকে সমাজের তিন বিশিষ্টজনেরা জানিয়েছেন আজকের এই অনুষ্ঠান যেন মোরা এক বৃন্তে দুটি কুসুম হিন্দু মুসলমান মুসলিম তার নয়ন মনি হিন্দু তাহার প্রাণ ।

কিবরিয়া সাহেব যে সস্বপ্ন রাখে গেছেন রাহুল রাজেশ ও তার মা স্বপ্ন সার্থক করেছে ।তাদেরকে ধন্যবাদ জানাই ।

 পরেও স্কুলের ছাত্রদের নিয়ে এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় ।

সেখানে ভিড় হয়েছিল ব্যাপক ।

স্কুলের তরফে এমন যে অনুষ্ঠান কে অভিভাবক থেকে শুরু করে শহরবাসী সাধুবাদ জানিয়েছেন।

0/Post a Comment/Comments