সত্যিই কি ভুত আছে! ঝাঁসির ভূতের-উৎপাতের রহস্য ফাঁস





লকডাউনের জেরে পার্কে প্রবেশ নিষেধ। তবু রোজ রাতে কেউ ব্যবহার করছে পার্কে রাখা ব্যায়ামের যন্ত্রপাতি! স্থানীয়দের দাবি, পার্কে কেউ নেই। কোনও অশরীরিই রাতের অন্ধকারে এসে ব্যায়াম করে! অদৃশ্য কোনও শক্তির 'ইচ্ছাতে'ই নাকি নড়ছে পার্কের জিম-যন্ত্রপাতি। উত্তরপ্রদেশের ঝাঁসি (Jhansi) শহরে মধ্যে এমনই আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে স্থানীয়দের মধ্যে। সোশ্যাল মিডিয়াতেও (Social Media) ব্যাপক ভাইরাল (Viral Video) হয়েছে অশরীরীর ব্যায়াম ভিডিয়ো! শেয়ার করতে বাধ্য হয়েছেন তারকারাও। পরিস্থিতি এমনই যে রাতের অন্ধকারেই সত্য-সন্ধানে ঘটনাস্থলে হাজির ঝাঁসি পুলিশ। 




রাতের সময়ে অনুসন্ধান চালিয়ে 'ভূত' ধরেছেন পুলিশকর্তারা। জানা গেছে, পার্কে ব্যায়ামের জন্য বসানো যন্ত্রে অতিরিক্ত তেল দিয়ে একবার নাড়িয়ে দিলে, স্বাভাবিকের থেকে বেশি সময় ধরে নড়তে থাকে ওই যন্ত্রাংশ। আর এমন সময়ই ভিডিয়ো তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। রাতের অন্ধকারে পার্কে হানা দিয়ে এই সত্যই ধরেছেন পুলিশকর্তারা। 


গুজবে  ও  কান না দিতে আর্জি জানিয়ে নিজেদের টুইটার অ্যাকাউন্টে সত্যি ভিডিয়ো পোস্ট করেছে ঝাঁসি পুলিশ। পাশাপাশি নিজেদের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট থেকেও টুইট করে সত্য-তথ্য জানিয়েছেন পুলিশকর্তারা। ভিডিয়ো ভাইরাল করার পিছনে ষড়যন্ত্রের অভিযোগ খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঝাঁসি পুলিশের পদস্থ কর্তা রাহুল শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, শীঘ্রই দুষ্কৃতীদের খুঁজে বের করা হবে।

বিশেষজ্ঞ দের মতে, 
যে কেউ ভয়ানক কিছু সুটিং করে তা ভাইরাল করলে তাকে সত্য ধরে নিতে হবে তার কোনো মানে নেই। সব কিছুর পিছনে বিজ্ঞান আছে, ভুত বলতে কিছুই নেই। 
কুসংস্কার দুর করতে সমাজ কে  শিক্ষিত হতে হবে। 
ভুত সুধু মানুষের ভয়াবহ ভাবনা। 
এই সংবাদ তা প্রমাণ করতে পারে।

0/Post a Comment/Comments

Previous Post Next Post
Contact for advertising : 9831738670